কাপড় চেনার উপায়: চলুন জেনে নেই বিস্তারিত!

কাপড় চেনার উপায় – কথাটি সহজ শুনালেও বাস্তবতা অনেকটা কঠিন। কাপড়ের অনেক প্রকারভেদ রয়েছে। হরেক রকমের এত সব কাপড়েরর মাঝে আপনার নির্বাচিত কাপড়টি সত্যিকার অর্থে কোন ধরণের – তা উপস্থিত সময়ে নির্নয় করা কঠিন।

ধরে নেই, আপনি ঘর থেকে মার্কেটের উদ্দেশ্যে বের হলেন পছন্দের কাপড়টি কেনার জন্য। অনেক খুজাখুজির পেয়ে গেলেন আপনার পছন্দের পোষাকটি। তারপর কাপড় বিক্রেতাকে প্রশ্ন করলেন, ভাই এটি কি কাপড় বা এই কাপড়ের নাম কি? তিনি বললেন, এটি সুতি কাপড় – কথার কথা। তারপর? আপনি কি তখন তখনই বিক্রেতার কথা অনুযায়ি আশ্বস্থ হয়ে যাবেন নাকি নিজে একটু পরীক্ষা করে কাপড়টি চেনার চেষ্টা করবেন?

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, তখন যে কোন কাস্টোমার কাপড়টি হাতে নিয়ে বিভিন্ন অংশ দেখে বুঝার চেষ্টা করে। আসলেই এটি বিক্রেতার কথামত সুতি কাপড় কিনা।

বাস্তবতা হল, কাপড় সম্পর্কে পূর্বে থেকে কোন ধারনা না থাকলে উপস্থিত সময়ে কাপড়ে হাত দিয়ে বুঝতে পারাটা একটু কনফিউজিং হয়ে যেতে পারে। যিনি সচারাচর দু’ এক ধরণের কাপড় পরে অভ্যস্ত, তার পক্ষেতো রীতিমত কঠিন ব্যাপার। সেক্ষেত্রে আপনার ঠকে যাওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই উড়িয়ে দেওয়া যায়না।

আপনার কষ্টার্জিত অর্থের বিনিময়ে ক্রয়কৃত পোষাকটি নিয়ে আপনার সন্দেহ থাকতেই পারে। সেই সন্দেহ কিছুটা হলেও দুর করতে আজ চলে এলাম আপনাদের মাঝে।

তবে, আপনার যদি কাপড়ের প্রকারভেদ সম্পর্কে ইতোপূর্বে ধারণা থেকে থাকে তাহলে কাপড় চেনার উপায় – বিষয়টি সহজে বুঝতে পারবেন।

অদ্যকার এই পোষ্টে বিভিন্ন প্রকার কাপড় কি কি বৈশিষ্টের আলোকে চিনতে পারবেন তা নিয়েই মুলত: কথা বলব। তো, চলুন শুরু করা যাক।

বিভিন্ন প্রকারের কাপড় চেনার উপায়

কটন কাপড় চেনার উপায়

বলে রাখা ভাল, কাপড় চেনাটা আসলে তেমন কঠিন কোন বিষয় নয়। খুবই সহজ একটি ব্যাপার। একটু চেষ্টা করে কিছু কৌশল রপ্ত করলেই হয়।

যেহেতু, বাজারে সর্বাধিক ব্যবহৃত কাপড়টির নাম সুঁতি কাপড়, তাই এটি দিয়েই শুরু করছি। সুঁতি কাপড় সম্পর্কে অপর এক পোষ্টে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। যদি সেই পোষ্টটি দেখে নেন তাহলে ভাল হয়।

সুঁতি কাপড় প্রাকৃতিকভাবে উদ্ভিদজাত উৎস হতে তৈরি করা হয়। যাকে আমরা তুলা বৃক্ষ নামে সকলেই চিনি। এই তুলার আঁশ থেকেই টেক্সটাইল প্রযুক্তি যেমন স্পিনিং, নিটিং, উইভিং, ডাইং এবং সর্বশেষ প্রিন্টিং প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কটন কাপড় Finished Products হিসাবে তৈরি করা হয়।

উপরে সুঁতি কাপড়ের উপর যে পোষ্টটি দেখে আসার অনুরোধ করা হয়েছে সেখানে  এই কাপড়ের কিছু বৈশিষ্ট উল্লেখ করা হয়েছে। যা জানা থাকলে এটি চেনা সহজ হবে। এর ফলে, কাপড় কেনার সময় এই কাপড়ের বৈশিষ্টগুলি মিলিয়ে দেখা যাবে।

এরপরেও, নিচে এই কাপড়ের কয়েকটি বৈশিষ্ট উল্লেক করছি-

  • কটন কাপড় তুলার আঁশের মত নরম ফাইবার দিয়ে তৈরি, তাই এটি নরম প্রকৃতির হয় এবং পরিধান করে আরামদায়ক অনুভূতি সৃষ্টি হয়।
  • কটন কাপড় পানি শোষন করতে পারে।
  • শুকাতে কিছুটা তুলনামুলক বেশী সময়ের প্রয়োজন হয়।
  • পানিতে ধুয়ার সময় কুঁচকে যায়।
  • দীর্ঘ সময় সূর্যালোকের উপস্থিতিতে কটন কাপড়ের গুনগত মান নষ্ট হয়ে যায়।
  • কটন কাপড় টেকসই হয়।
  • সুতি কাপড় পরিধানের সময় বাতাস শরীরের ভেতর প্রবেশ করতে পারে। ফলে, গ্রীষ্মকালে বেশীরভাগ মানুষই কটন কাপড় ব্যবহার করে থাকে।

তবে, বাস্তবতা হলো, বাজারে প্রচলিত পিওর কটন বা ১০০% সুঁতি কাপড় চেনার উপায় হিসাবে শুধু উপরের বৈশিষ্টগুলি মিলানোই যথেষ্ট নয়। বিক্রেতা তার বিক্রির স্বার্থে একটি কাপড়কে যখন ১০০% পিওর কটন বলে ঘোষনা দিয়ে আপনার হাতে ধরিয়ে দিবে, তখন কাপড়টি শতভাগ কটন কিনা তা নিশ্চিত হওয়া আপনার সামনে একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়াতে পারে।

আপনার  থিওরিটিক্যাল বা তাত্ত্বিক জ্ঞানের অংশ হিসেবে বিভিন্ন ধরনের কাপড়ের বৈশিষ্ট সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করা অবশ্যই আপনার জন্য প্লাস পয়েন্ট। তবে, থিওরিটিক্যাল জ্ঞানের সাথে সাথে প্র্যাকটিকাল বা ব্যবহারিক জ্ঞান প্রয়োজন আছে।

যখন উভয় প্রকার জ্ঞান অর্জন হবে,  তখন পিউর কটন চিনতে আপনি ভূল করবেন না। তাই, আসুন নিচের অংশ থেকে জেনে নেই কি কি প্রেকটিক্যাল পরীক্ষা করার মাধ্যমে আমারা একটি কাপড় একশতভাগ পিউর কটন হিসাবে সনাক্ত করতে পারি।

  • লাইট টেষ্ট: কাপড়টিকে আলোর সামনে ধরুন। এতে যদি কাপড়টি ভিতর দিয়ে আলো প্রবেশ করতে পারে তাহলে বুঝা যাবে কাপড়টি খুব স্বচ্ছ। আর এরকম স্বচ্ছতা কটন কাপড়ের বৈশিষ্ট নয়।
  • ইউনিফর্মিটি টেষ্ট: আমরা জানি, তুলার আঁশ স্পিনিং প্রক্রিয়ায় ইয়ার্ন তৈরি হয়। আবার এই, ইয়ার্নগুলি বুনন বা উইভিং এর মাধ্যমে কটন কাপড় তৈরি হয়। অর্থাৎ, কটন কাপড়ে বুনন প্রক্রিয়ার একটি প্যাটার্ন অবশ্যই থাকবে যা আপনি হাত দিয়ে একটু গভীরভাবে লক্ষ করলেই বুঝতে পারবেন।
  • বার্ন টেষ্ট: এই বার্ন টেষ্টই হল কটন কাপড় সনাক্ত করার কনাফার্মেটরি টেষ্ট বা নিশ্চিত পরীক্ষ। এই পরীক্ষা করার জন্য কাপড়টির কোন এক অংশ আপনি আগুনের শিখার উপর ধরুন। কাপড়টির কিছু অংশ বা কিছুর ফাইবার পুরে যাওয়ার পর এবারে আপনি ধোয়ার গন্ধটি অনুভব করুন। কটন কাপড়ের বেলায় ধোয়ার গন্ধ অনেকটা কাগজ পোড়ানোর মত মনে হবে। এবং কাপড়ের পুরে যাওয়া অংশটি সাধারন Ash ছাই এর মত দেখা যাবে। এর ব্যাতিক্রম কিছু পেলেই বুঝতে হবে, বিক্রেতা তার দাবীতে সত্যবাদি নয়।

লিনেন কাপড় চেনার উপায়